শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

কিশোরগঞ্জে বিলুপ্তির পথে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ঘানি শিল্প 

রউফুল আলম
  • আপডেট টাইম: ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪০ বার পঠিত
Exif_JPEG_420

কিশোরগঞ্জে বিলুপ্তির পথে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ঘানি শিল্প 

মোঃ আদর আলী, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায়
সময়ের বিবর্তনে বিলুপ্তির পথে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য  ঘানিশিল্প। আধুনিক বিজ্ঞানের যুগে নিত্যনতুন যন্ত্রপাতির আবিষ্কারের ফলে মানুষের প্রতিটি কাজ হচ্ছে সহজ থেকে সহজতর। বিদ্যুৎ চালিত যন্ত্রের ব্যবহারের ফলে স্বল্পখরচ ও স্বল্পসময়ে অধিক উৎপাদনের কারণে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ‘ঘানিশিল্প’ আজ প্রায় বিলুপ্তির পথে। ফলে ঘানিশিল্প সংশ্লিষ্ট অনেকেই বাধ্য হয়ে অন্য পেশায় ঝুঁকে পড়ছেন।
যারা আছেন তারা বাপ-দাদার এ পেশাকে কোনো রকম আকঁড়ে ধরে রেখেছেন। এক সময় ঘানিশিল্পে গরুর সাহায্যে সরিষা তেল বের করা হত। গৃহস্থরা খাঁটি সরিষার তেল তরি-তরকারিসহ সব ধরনের রান্নার কাজে ব্যবহার করত। এক কথায় ঘানির সরিষার তেল ছাড়া সে সময় রান্না-বান্নাতে যেন গৃহিনীরা আর অন্যকিছু চিন্তাই করতো না। সে সময় ঘানির সরিষার তেলের বিকল্প যেন আর কিছুই ছিল না।
আজ বুধবার সকাল সাতটার সময় উপজেলার  বাহাগিলী ইউনিয়নের উত্তর দুরাকুটি তাতীপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, ঘানির সাথে একটি করে গরুর চোখ বেঁধে কাঁধে জোয়াল লাগিয়ে দেয়া হয়। পরে গরুটি দিনভর চরকীর মতো আপন মনে ঘুরতে থাকে। তখন ঘানির নল দিয়ে টিপটিপ করে তেল বের হতে থাকে।
একসময় গৃহস্থরা সেই তেল মাটির পাতিলে করে বাঁশের চোঙ্গ দিয়ে মেপে বাজারে বিক্রি করতো। এ যেন সত্যিই গ্রাম বাংলার ঐহিত্যের অহংকার। কিন্তু বর্তমান ডিজিটাল যুগে সেই তেল ডিজিটাল মাপক যন্ত্র দিয়ে মেপে বিক্রি করা হচ্ছে। কালের বিবর্তনে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘানিশিল্প আজ প্রায় বিলুপ্ত। বৈদ্যুতিক যন্ত্রের শব্দে হারিয়ে যেতে বসেছে আদি কালের ঘানি শিল্পের সেই ক্যাঁচ ক্যাঁচ শব্দ।
আধুনিক সভ্যতার ক্রমবিকাশে তেলের ঘানিশিল্পের পরিবর্তে যন্ত্রচালিত তেলের কল চালু হওয়ায় এবং গৃহস্থরা খাঁটি সরিষার তেলের বিকল্প যেমন সয়াবিন, পামওয়েল, কলের সরিষা তেল ব্যবহারে কারণে সরিষা তেলের চাহিদা দিনে দিনে কমতে থাকায় এ শিল্প প্রায় বিলুপ্তির পথে। আবার সরিষার আবাদ কমে যাওয়ায় এবং সরিষার দাম বেশি হওয়ায় ঘানির তেলের দামও বেশি।
 কিশোরগঞ্জ  উপজেলার বাহাগিলী  ইউনিয়নের তাতীপাড়া গ্রামের ফজলে  জানান, খুব কষ্ট করে বাপ-দাদার এ পেশাটি ধরে রেখেছি। তার বাড়িতে একটি ঘানি রয়েছে। দৈনিক একটি ঘানি থেকে ২ কেজি সরিষার তৈল উৎপাদন হয়। যাহার বর্তমান বাজারমূল্যে ৫শত থেকে ৬শত টাকা বিক্রি হচ্ছে। তাই কোনরকম খেয়েপরে পেশাটি ধরে রেখেছেন তিনি। তার পরিবারের আর কেউ এ পেশার সাথে জড়িত নয়। সকলেই অন্য পেশা বেছে নিয়েছে। কিন্তু কালের বির্বতনে সব হারিয়ে গেছে। বর্তমানে কিশোরগঞ্জ  উপজেলার কয়েক জন তাদের বাপ-দাদার এ ব্যবসা ধরে রেখেছেন। তবে অনেকের মতে এখনও খাঁটি সরিষার তেল বলতে ঘানির তেলকেই বুঝিয়ে থাকেন। ঘানির তেলের এই ব্যাপক চাহিদার পরও আধুনিক প্রযুক্তির প্রসারের কারণে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী ঘানিশিল্প।
তবে ঘানিশিল্পে লোকসানের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এ ব্যবসায় এখন আর লাভ নেই। আর ২/১ বছরের মধ্যে এ পেশা একেবারে বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ