বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ১১:২৩ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জ এপি,ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের উদ্যোগে সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের মাঝে কম্বল বিতরণ

Rouful Alam
  • আপডেট টাইম: রবিবার ১২ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪০৮ বার পঠিত

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি:
বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে এখন পড়েছে তীব্র শীত। এই শীতে সবচেয়ে নাজুক অবস্থায় রয়েছে দরিদ্র জনগোষ্ঠী। নীলফামারী জেলার বে-সরকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ কিশোরগঞ্জ এপি’র উদ্যোগে দরিদ্র ও হতদরিদ্র শীতার্ত পরিবারের শিশুদের মাঝে বিনামূল্যে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ এপি’র কর্ম এলাকার ০৫ টি ইউনিয়ন পুটিমারী, নিতাই, বাহাগিলি, কিশোরগঞ্জ সদর ও চাঁদখানা ইউনিয়নে ৩২৫০ টি শীতার্ত পরিবারের নিবন্ধিত শিশুদের(আর.সি) মাঝে শীত বস্ত্র হিসেবে প্রত্যেককে একটি করে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

রবিবার ১২ ডিসেম্বার সকাল ১০ টায় কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ মাঠে ৮৭০ (শত) দরিদ্র ও হতদরিদ্র শীতার্ত পরিবারের শিশুদের মাঝে বিনামূল্যে কম্বল বিতরণ করা হয়। কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম আনিছ-এর সভাপতিত্বে জনকল্যাণ ফোরাম সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এটিএম আনিছুর রহমান, জনকল্যাণ ফোরাম সেক্রেটারী ছাইয়েদ হোসেন সাবুল, সাংবাদিক রউফুল আলম ও সাংবাদিক জয়নাল আবেদীন এবং ভিডিসির সভাপতি, সেক্রেটারী ও সদস্যসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন, ওয়ার্ল্ড ভিশনের স্বচ্ছ উপকারভোগী বাছাই প্রক্রিয়া খুব প্রশংসনীয়। নিরপেক্ষ যাচাই- বাচাইয়ের মাধ্যমে হতদরিদ্র পরিবারের শীতার্ত শিশু নির্বাচনের মাধ্যমে ওয়ার্ল্ড ভিশন প্রতিনিয়ত উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসতেছে। ওয়ার্ল্ড ভিশনের পক্ষে কম্বল বিতরণের সার্বিক, সঠিক, দিক-নির্দেশনার দায়িতে¦ ছিলেন, প্রোগ্রাম অফিসার সানজিদা আনসারি, কৃষিবিদ মোঃ আমজাদ হোসেন, মি.মিন্টু বিশ্বাস, মি.শ্যামল মন্ডল, কৃষিবিদ মোছাঃ মাজেদা খাতুন মুন্নি (লাইভলিহুড ইন্টাঃ), চাইল্ড প্রোটেকশন অফিসার মি. সঞ্চয় লরেন্স মল্লিক ও মিস. মনি দিয়, এপি ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ।

প্রোগ্রাম অফিসার সানজিদা আনসারি বলেন, এই কম্বল বিতরণের মধ্য দিয়ে শীতার্ত পরিবারের শিশুদের শিক্ষা, চিকিৎসা, অন্ন, বস্ত্র, বিনোদনের সুযোগ তথা শিশুর সার্বিক কল্যাণ পরিবার কর্তৃক নিশ্চিত হবে এটাই আমাদের লক্ষ্য। উপস্থিত অভিভাবকদের কাছে কম্বল বিতরণ প্রক্রিয়ায় কোন রকম অনিয়মের কথা জানতে চাইলে তারা জানান, উপস্থিত সকল উপকার ভোগী শিশুরা কোন প্রকার অনিয়ম হয়নি বলে মতামত প্রকাশ করেন। তিনি সকল উপকার ভোগী শিশুর উজ্জল ভবিষ্যত কামনা করে তার বক্তব্য শেষ করেন।

জনকল্যাণ ফোরাম সভাপতি বলেন, আমাদের ইউনিয়নে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ-এর অবদান চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। শিশুদের সার্বিক উন্নয়নে তাদের অবদান অনস্বীকার্য।

সাংবাদিক রউফুল বলেন, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ সব সময়ই শিশুদের মঙ্গলের জন্য কাজ করে আসছে। এই কম্বল প্রদানের মাধ্যমে শিশুদের ঠান্ডা জনিত কষ্ট কিছুটা হলে ও লাঘব হবে। আমি সংস্থার এনরুপ জনহিতকর কাজে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

৩২৫০ টি কম্বলের মধ্যে কেল্লাবাড়ী ভিডিসি অফিস মাঠে ৩৭৪, পানিয়াল পুকুর ফেডারেশন মাঠে ৩৪৪, বাহাগিলি ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে ৪০২, পুটিমারী ভেড়ভেড়ী জুনিয়র হাই স্কুল মাঠ ও বিভিন্ন ভিডিসি কেন্দ্রে সর্বমোট ৩২৫০ টি কম্বল দরিদ্র পরিবারের নিবন্ধিত শিশুদের মাঝে বিতরণ করা হয়। কম্বল পেয়ে সকলে হাসিমুখে বাড়ি ফিরে যায়। আসুন আগামী প্রজন্মের জন্য আমরা সকলে মিলে এক সাথে কাজ করি এবং প্রতিটি শিশুই বেড়ে উঠুক তার নিজস্ব প্রতিভা বিকাশের স্বকীয়তায়।

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ