রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

ওসি প্রদীপসহ ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা স্থগিত ‘বন্দুকযুদ্ধের’ নামে দুই ভাইকে হত্যা

রউফুল আলম
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার ২৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৫২ বার পঠিত

 

এম মনির চৌধুরী রানা

চন্দনাইশে দুই ভাইকে ইয়াবা ব্যবসায়ী সাজিয়ে বন্দুকযুদ্ধের নামে হত্যার অভিযোগে টেকনাফে থানার বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে নিহতের পরিবারের দায়ের করা মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেছেন আদালত।

গতকাল অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোসাম্মৎ ফরিদা ইয়াছমিনের আদালত পূর্ব নির্ধারিত ধার্য্য তারিখে শুনানি শেষে বাদীপক্ষের করা সিআর মামলাটির কার্যক্রম স্থগিত আদেশ দেন ।

মামলাটির ” আইফন সহায়তা প্রদানকারী মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন ” চট্টগ্রামের সভাপতি অ্যাডভোকেট জিয়া হাবীব আহসান গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, সোমবার আদালত শুনানি শেষে ফৌজদারি কার্যবিধির ২০৫ ‘ডি’ ধারায় বাদীপক্ষের অভিযোগটি স্থগিত করেছেন।

তিনি বলেন, ইতিপূর্বে নিহত দুই ভাই হত্যার ঘটনায় চন্দনাইশ থানা ও কসকবাজার জেলার কোন মামলা দায়ের হয়েছে কিনা তা জানতে আদালতের দেয়া পৃথক আদেশে প্রতিবেদন তলব করা হয়েছিল। পরে এএসপি (আনোয়ারা সার্কেল) ও এসপি(কসকবাজার) কোনো হত্যা মামলা দায়ের হয়নি বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় ।

যেহেতু প্রতিবেদনে নিহতদের বিষয়ে কোনো মামলা হয়নি বলে উল্লেখ রয়েছে সেহেতু আদালত মামলাটি আমলে নিতে আর কোনো বাধা ছিল না। এ আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে বলে জানান অ্যাডভোকেট জিয়া হাবীব আহসান।

জানা গেছে, ফৌজদাবি কার্যবিধি- ২০৫-ডি ধারায় একই বিষয়ে কোনো মামলা বা তদন্ত কার্যক্রম চলতে পারে না বলে উল্লেখ রয়েছে। গত ১৬ জুলাই টেকনাফে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা যান চন্দনাইশের বাসিন্দা বাহরাইন প্রবাসী আজাদুল ইসলাম আজাদ (২৫) ও আমানুল ইসলাম ফারুক (৩৫) নামে দুই ভাই।

নিহতেরা মাদক কারবারী উল্লেখ করে ওই সময় টেকনাফ পুলিশ তাদের কাছ থেকে ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারের কথা জানান। ওই ঘটনায় গত ০২ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম আাদালতে মেজর সিনহা হত্যায় অভিযুক্ত টেকনাফে থানার বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৫ পুলিশ সদস্য ও অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন নিহতের বোন রিনাত সুলতানা।

মামলার আরজিতে অভিযোগ আনা হয়, অভিযুক্ত ওসি প্রদীপসহ অন্যান্যরা চন্দনাইশ পুলিশের সহায়তায় দুই ভাইকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরে ৮ লক্ষ টাকা চাঁদা না পেয়ে মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে তাদের হত্যা করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ