শুক্রবার, ২৫ Jun ২০২১, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

কিশোরগঞ্জে সমঝোতা স্মারক চুক্তি ও স্বাক্ষর প্রদান অনুষ্ঠিত

রউফুল আলম
  • আপডেট টাইম: বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৪৫ বার পঠিত

সাহেব আলী, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি:

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের নিতাই ইউনিয়নের পানিয়াল পুকুর হাইস্কুল মাঠ প্রাঙ্গণে দলীয় অংশীদার ও গ্রাম উন্নয়ন কমিটি (ভিডিসি) প্রতিনিধিদের নিয়ে সমঝোতা স্মারক চুক্তি ও স্বাক্ষর প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত।

গতকাল কিশোরগঞ্জ এরিয়া প্রোগ্রাম, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের আয়োজনে সমঝোতা স্মারক চুক্তি ও স্বাক্ষর প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, নিতাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফারুক উজ জামান ফারুক, মুশরুত পানিয়াল পুকুর চেয়ারম্যান পাড়া ভিডিসির সভাপতি মোঃ সহিদার রহমান, মুশরুত স্কুল পাড়া ভিডিসির সভাপতি মোঃ আফজাল হোসেন দুলু, নিতাই সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান, নিতাই যুব কল্যাণ সংঘের সভাপতি মোঃ নাসির হোসেন, উপদেষ্টা কমিটির সদস্য মোঃ মোঃ জাহেদুল ইসলাম, আখতারুজ্জামান রুবেল, সহায়তাকারী নিতাই ল্যাম্ব অফিসের মোঃ লাল বাবু, ব্র্যাক অফিসের মোঃ মোস্তাফিজার রহমান, দৈনিক জাগো জনতার প্রতিনিধি মোঃ সাহেব আলী, সাংবাদিক ও কবি মোঃ আব্দুল গফ্ফার রাজু প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন, এপি প্রোগ্রাম অফিসার মি. মিন্টু বিশ্বাস।

এই সমঝোতা স্মারক চুক্তির আওতায় ঝুঁকিমুক্ত ক্লিন গ্রিণ ও বাল্য বিবাহ মুক্ত সমাজ, দারিদ্র নিরসন ও নিরাপদ শিশুবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতে কাজ করা। বলা হয়, ১৮ বছরের কম বয়সী সকলেই শিশু। এই শিশুরা কোন শ্রমে নিযুক্ত না হয়ে শিক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে জীবনকে বিকশিত করবে-এটাই কাম্য। দেশের অধিকাংশ শিশু দারিদ্রের কারণে শ্রমে নিযুক্ত রয়েছে। যে সকল কাজে নিয়োজিত হওয়ার কারণে শিশুর নিরাপত্তা, কল্যাণ, আত্মবিকাশ ও সুস্থ্য জীবন প্রক্রিয়া বিঘ্নিত হয় তা-ই শিশুশ্রম। দারিদ্র্যের কারণেই মূলত শিশু শ্রম বন্ধ হচ্ছে না। দারিদ্র্য ছাড়াও জনসংখ্যার উর্ধবগতি, শিক্ষার অভাব, গনসচেতনতার অভাব, সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গী, প্রাকৃতিক বিপর্যয়, আইন প্রয়োগের অভাব, স্বল্প বেতনে শিশু শ্রমিকের সহজ প্রাপ্যতা, ভবিষ্যৎ কর্মসংস্থানের অনিশ্চয়তা, পারিবারিক বিচ্ছেদ, কুসংস্কার, পরিবারের আকার বড়, বহুবিবাহ, বাল্যবিবাহ, শহরে বস্তির বিস্তার, পিতা-মাতার মৃত্যু/স্থায়ী অনুপস্থিতি প্রভৃতি শিশুশ্রমের অন্যতম কারণ। সুতরাং শিশুকে যে কোন শ্রমে নিয়োগ; বিশেষ করে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োগ দান বন্ধ করতে হবে। সমঝোতা স্মারক চুক্তি ও স্বাক্ষর প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্য হচ্ছে, ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম দূরীকরণ এবং স্বল্পমেয়াদী উদ্দেশ্য হলো নির্বাচিত ঝুঁকিপূর্ণ সেক্টর থেকে শিশুশ্রম প্রত্যাহার করা। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা্ ও দক্ষতা উন্নয়ন মুলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুদের সনাক্তকরণ; ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রমের দীর্ঘমেয়াদী বিরুপ প্রভাব সম্পর্কে গণসচেতনতা বৃদ্ধি করা; ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুদের জন্য অপেক্ষাকৃত উন্নত কর্মসংস্থান তৈরী করা; সরকারী কর্মকর্তা, শ্রমিক, এনজিও এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে সমন্বয়কে শক্তিশালী করা এবং পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশ থেকে সকল ধরণের শিশুশ্রম প্রত্যাহার ও দূরীকরণের কৌশলগত নীতি নির্ধারণ করা।

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ