বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৮ অপরাহ্ন

ভ্যান, অটোরিক্সা বন্ধ, কি খায়ে বাঁচমো; রাস্তা ভালো করে দাও!

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার ৬ জুলাই, ২০২১
  • ১৪৭ বার পঠিত

ভোগান্তির আরেক নাম জয়পুরহাট কালাইয়ের তেলিহার-ভাটাহার ও পাইকপাড়াসহ কয়েকটি গ্রামের শতশত পরিবারের মানুষরা। যুগের পর যুগ কাঁচা রাস্তার কাদাতে চরম দুর্ভোগে স্থবির হয়ে পড়েছে তাদের জনজীবন।

গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জের বাইবাস রাস্তা হিসাবে পরিচিত এ রাস্তা। ওই এলাকার ৩ কিলোমিটারেরও বেশি কাঁচা রাস্তাটি এখনও পাকা হয়নি। এই এলাকায় রয়েছে কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি ক্লিনিক, কয়েকটি আদর্শ গুচ্ছগ্রামসহ নানা সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও হাটবাজার। সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন থাকলেও এই মাটির রাস্তা পাকা না হওয়ায় স্থানীয়দের অভিযোগের অন্ত নেই। কর্মহীন হয়ে পড়েছে ভ্যান, অটোরিক্সা ও শ্যালোচালিত ট্রলির চালকরা। স্থানীরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য বেচাকেনা করতে পারছেনা।

এলাকাবাসী স্থানীয় ভ্যানচালক মাবিল ফকির আবেক নিয়ে বলেন, রাস্তা কাদোর কারণে ভ্যান চালাতে পারছি। ভ্যান বন্ধ করে ছোরব বাড়িত বসে আছি। চাল কিনা পারোছিনা ভাই। হামাক এনা সাহায্য করো, আল্লাহ তোমাগোরক ভালো করবে। এমনি আক্ষেপ করে স্থানীয় জাহাঙ্গীর আলম, তোতা মিয়াসহ অনেকেই বলেন, হামাগেরে খুব সমস্যা, ধান-চাল বানাকোটা হওছেনা রাস্তার জন্য। তোমরা এনা রাস্তা ভালো করে দাও, বৌ-বাচ্চা লিয়ে খুব কষ্টে আছি, কি খায়ে বাঁচমো। ভ্যান, রিক্সা, মটরসাইকেল কেউই বের করতে পারছে না। ছেলে-মেয়ের বিয়ে ঘর আসলে রাস্তা দেখে বিয়ে দিতে চায় না।

স্থানীয় উদয়পুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ওয়াজেদ আলী ঐ এলাকার মানুষদের দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে বলেন, এ এলাকার রাস্তার কথা চিন্তা করে ব্যক্তিগত উদ্দ্যোগে যতটুকু সম্ভব রাস্তা সংষ্কারের চেষ্টা করছি। তেলিহার-ভাটাহারের মত আরও প্রতিনিয়ত ১৫টি গ্রামে মানুষ কাঁদার মধ্যে চলাচল করছে। তবে এ এলাকার কাঁচা রাস্তাগুলো এলজিইডিতে আইডি ধরে দেয়া আছে। তারা ব্যবস্থা নিবে। তিনি আরও বলেন, কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করতে পারছে না। এমনকি রাস্তার বেহাল দশায় ছেলে-মেয়ের বিয়ে দিতে অনিহা দেখা দিচ্ছে।

এদিকে এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আলাউদ্দিন হোসেন বলেন, আমাদের ৪ ক্যাটাগরিতে রাস্তা হয়। জেলায় ৭১১টি এলজিইডির রাস্তা আছে এর মধ্যে ৫৪৬ কি.মি রাস্তা এখনও মাটির কাঁচা আছে। এর মধ্যে তেলিহারের রাস্তাটি আইডি হয়েছে, ভাটাহারের রাস্তার আইডির ব্যাপারে মিটিং হয়েছে। জেলার অন্যান্য কিছু কাঁচা রাস্তাগুলোর আইডি করে সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দপ্রাপ্তি সাপেক্ষে কাজ করা হবে।

ইন্দোবাংলা/ এম. আর

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ