বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৯ পূর্বাহ্ন

কালাইয়ে বাঁশ কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ৩

ইন্দোবাংলা প্রতিনিধি, কালাই (জয়পুরহাট)
  • আপডেট টাইম: রবিবার ৮ আগস্ট, ২০২১
  • ১৩৫ বার পঠিত

নিস্তেজ শরীর, সর্বাঙ্গে ব্যাথা। কথা বলার মতো শক্তিও নেই। পাশেই বসে চিন্তিত স্ত্রী নিশ্চুপ। বাঁশ ঝাঁড় নিয়ে বিবাদে প্রতিপক্ষের মারধরের শিকার হয়ে এভাবেই হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন এক যুবক। অপর দিকে একই ঘটনায় মাও চিকিৎসাধীন।

সোমবার (৮ আগস্ট) জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালের জরুরী বিভাগে গিয়ে এমনটিই দেখা যায়। ছেলে গৌতম চন্দ্র মহন্ত চিকিৎসা নিচ্ছেন ১ নং ওয়ার্ডে আর মা মাধবী রানী মহন্ত ৪ নং ওয়ার্ডে। এ ঘটনায় অপর পক্ষের সুব্রত মহন্ত আহত অবস্থায় ক্ষেতরাল হাসপাতালে ভর্তি আছেন

ঘটনার বিবরণে অসুস্থ গৌতমের ভাই লিকন চন্দ্র মহন্ত বলেন, কালাই উপজেলার মাত্রাই কুসুমসাড়া গ্রামে হরিদাস চন্দ্র মহন্ত পারিবারিক ও জমা-জমির বিষয় নিয়ে তার চাচাতো ভাই সুকুমার চন্দ্র মহন্তের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এমতাবস্থায় গতকাল শনিবার সকাল ৮টায় সুকুমার মহন্ত বাঁশ ঝাড়ে বাঁশ কাটে। এসময় হরিদাসের পরিবার তাতে বাধা দিলে গৌতম ও মাধবীকে সুকুমারের পরিবারের লোকজন এলোপাতারি মারধর করে। এতে তারা আহত হলে ঘটনাস্থল থেকে তাদের উদ্ধার করে কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এতে অবস্থার অবনতি হওয়ায় চিকিৎসক জয়পুরহাট হাসপাতালে রেফার করে।

স্থানীয়রা জানান, বাঁশ কাটা নিয়ে এই বিরোধ। এতে দুই পক্ষের কয়েকজন আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

হরিদাস চন্দ্র জানান, জোর করে সম্পত্তির মালিকানা দাবী করে বিরোধ সৃষ্টি করে। আমার বাঁশঝাড়ে সুকুমার বাঁশ কাটতে এলে আমার পরিবার বাঁধা দিলে স্ত্রী ও সন্তানকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে গুরুতর জখম করে।

সুকুমার চন্দ্র জানান জায়গা অনেকদিন আগেই ভাগাভাগি করা হয়েছে বাঁশঝাড় আমার মধ্যে থাকায় বাঁশ কাটতে গিয়েছি। বাঁশ কাটতে গেলে আমার ছেলেকেই মারধর করে।

মাত্রাই ইউপি সদস্য আব্দুল হান্নান বলেন পূর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনার সূত্রপাত। সম্পত্তি নিয়ে খুব দ্রুত স্থায়ীভাবে তাদের পরিবারে সমাধান না হলে ভবিষ্যতে বড় ধরনের সংঘর্ষ হতে পারে।

কালাই থানা অফিসার ইনচার্জ সেলিম মালিক জানান তাদের বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া গেছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইন্দোবাংলা/আর. এম

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ