বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন

চৌগাছায় মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোলাগুলিতে দুজন আহত

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম: রবিবার ৫ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪০৩ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছায় মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোলাগুলিতে রাসেল (35) ও লোকমান (34) নামে দুই যুবক আহত দুজন হয়েছে। ৪জানুয়ারী সন্ধ্যার পরে এ ঘটনা ঘটে।

রাসেল চৌগাছা মনমথপুর গ্রামের মৃত আলীর ছেলে আর লোকমান চানপুর গ্রামের আতর আলীর ছেলে।

ঘটনাৱ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব বলেন, মনমথপুৱ গ্রামের আইজুদ্দি সাথে চাঁনপুর গ্রামের মাদক ব্যবসায়ী সবুজের গোলযোগ হয়। তখন সবুজ চানপুর গ্রামের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী আতিয়ারেৱ ছেলে মাৱুফকে ফোন করে।

মারুফ তার সাথে অপর মাদক ব্যবসায়ী লোকমান ও সাগরকে নিয়ে হাজির হয়। তারা এসে সেখানে উপস্থিত ৱাসেলকে আক্রমণ করে। তখন আইজুদ্দিনের মধ্য থেকেই সবুজদের উপর গুলি কৱা হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছিয়ে মাদক ব্যবসায়ী সবুজের ফেলে যাওয়া মোটর সাইকেলটিকে আইজদ্দিদেৱ হাত থেকে রক্ষা করে । তবে গুলিবিদ্ধ লোকমানও একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলেই জানান ওসি রিফাত খান রাজীব। গুলিবিদ্ধ লোকমান যশোর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আৱ রাসেল কোথায় চিকিৎসা নিচ্ছে সে ব্যাপারে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন,সন্ধ্যার কিছু পরে মনমথপুর গ্রামের লিয়াকতের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী শরিফুুল ও চাঁনপুর গ্রামের মৃত নুর বকসোর ছেলে মাদক ব্যবসায়ী রফিকুলেৱ মধ্যে মাদক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মারামারি হয়। তখন মনমথপুৱ গ্রামের আইজুদ্দি সহ বেশ কিছু লোক তাদেরকে থামান।

এ ঘটনার পরে মাদক ব্যবসায়ী রফিকুল তাৱ ভাইপো আতিয়াৱের ছেলে পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী মারুফকে মুঠোফোনের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে আসেন। মারুফ তার সাথে আৱ এক চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী চাঁদপুর গ্রামের খালিদের ছেলে সবুজসহ লোকমান ও সাগর কে নিয়ে আসে।

মারুফ ও তাৱ দল এসে উপস্থিত হলে রফিকুল আবারো শরিফুলের উপরে আক্রমণ করে। তখন শরিফুলের গ্রামের লোক তাকে মারুফদেৱ হাত থেকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসে।

এমন সময় মাদক ব্যবসায়ী সবুজ লোকমানকে পিস্তল বের করতে বলে। তখন লোকমান পিস্তল বের করে আকাশের দিকে গুলি ছোড়ে। গুলির ভয় শরিফুলকে বাঁচাতে আসা লোকজন পিছু হটে যায়। পরে তারা আবার সংঘবদ্ধ হয়ে সবুজদেরে ধাওয়া করে। লোকমান তখন আরো গুলি করে।

এসময় রাসেল দৌড়ে এসে লোকমানকে জড়িয়ে ধরে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে লোকমানের হাতের পিস্তলের গুলিই লোকমানের বাম পায়ে বিদ্ধ হয়। ধস্তাধস্তির সময় সবুজদের হাতে থাকা দায়ের কোপে রাসেলের হাতের আঙ্গুল কেটে পড়ে যায়।

রাসেলকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখে সকলে একযোগে এগিয়ে এসে লোকমানকে ধরে ফেলে। সেই সময় সবুজ লোকমানের হাতেৱ পিস্তল নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। মারুফ ও সবুজরা দৌড় দিলে আইজুদ্দিৱা লোকমানকে গণধোলাই দেয়।

নিউজটি শেয়ার করুন


এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ