সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন

সরকারি জরুরি হটলাইন

সরকারি তথ্য ও সেবা-৩৩৩, জরুরি সেবা-৯৯৯, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে-১০৯, দুদক-১০৬, দুর্যোগের আগাম বার্তা-১০৯০, শিশুর সহায়তায় ফোন-১০৯৮, ভূমির সেবা পেতে...অভিযোগ জানাতে-১৬১২২, ই-জিপি জরুরি হেল্পলাইন-১৬৫৭৫, নৌপরিবহনের হেল্পলাইন-১৬১১৩। তথ্য সুত্র : পিআইডি

শিরোনাম
মানুষ এখন শখ করে পান্তা ভাত খায় : খাদ্যমন্ত্রী ‘স্মার্ট বাংলাদেশের অংশীদার হই, বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং ও মাদকমুক্ত রই’ জয়পুরহাটে সমবায়ীদের তোপের মুখে যুগ্মনিবন্ধক ডিএমপি কমিশনার হলেন অতিরিক্ত আইজিপি হাবিবুর রহমান উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য কমিউনিটি স্বাস্থ্যসেবায় বৈশ্বিক সহায়তা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী সার্বিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টার প্রশংসা ‘হু’ প্রধানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে মার্কিন কাউন্সিলর ডেরেক শোলের সাক্ষাৎ বিএনপিকে নির্বাচনে আসার আহ্বান কৃষিমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ কেবল শেখ হাসিনার দ্বারাই সম্ভব : সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী অর্থ আত্নসাৎ, দুই বছর বেতন বাড়বে না সমাজসেবা কর্মকর্তার

তাজমহল নিয়ে পিটিশন নাকচ, আদালতের ভর্ৎসনা

যমুনা নিউজ বিডিঃ  ভারতের এলাহাবাদ হাইকোর্ট তাজমহলের বদ্ধ কক্ষগুলো খোলার দাবিতে একটি পিটিশন নাকচ করে দিয়েছেন। একইসঙ্গে আদালত আবেদনকারী বিজেপি যুব শাখার নেতা রজনীশ সিংকে কঠোর ভাষায় ভর্ৎসনা করে বলেছেন, আগে গিয়ে পড়াশোনা করেন, তারপর এসব বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনৌ বেঞ্চ বলেছেন, ‘নন-জাস্টিসেবল’ বা বিচারের অতীত বলে কিছু বিষয় আছে। না জেনে মুর্খের মতো মামলা নিয়ে হাজির হওয়া কখনো কাম্য নয়। জনস্বার্থমূলক মামলার নামে এমন অর্থহীন কর্মকাণ্ড জনস্বার্থমূলক মামলা ব্যবস্থাকে উপহাসের শামিল।

তাজমহলের নিচে মন্দির ছিল এবং ওই মন্দিরের মূর্তিগুলো এখনও তাজমহলের বিশটি বদ্ধ কক্ষে সংরক্ষিত রয়েছে দাবি করে বিজেপির রজনীশ সিং কক্ষগুলো খোলার আদেশ দিতে আদালতের শরনাপন্ন হয়েছিলেন। বিচারপতি ডিকে উপাধ্যায় ও সুভাষ বিদ্যার্থীকে নিয়ে গঠিত আদালত বেঞ্চ আজ সকালে আবেদনের উপর শুনানি নেন। শুনানির শুরুতে আবেদনকারীর আইনজীবী বলেন, তাজমহলের গোপন কিছু সত্য আছে। দেশের মানুষের এ সত্য জানা জরুরি।

এ সময় আবেদনকারী রজনীশ সিং বলেন, আমি তথ্য অধিকার আইনে অনেকগুলো আবেদন করেছি। তাজমহলের নিচে অনেক গোপন জিনিস আছে। এগুলো প্রকাশ হওয়া দরকার। আবেদনের সঙ্গে আমি একটি নিবন্ধ সংযুক্ত করেছি। যেখানে ভবনটির বয়স নিয়ে কথা আছে।

এ পর্যায়ে আদালত আবেদনকারীকে প্রশ্ন করেন, আপনি কি বলতে চান এটা শাহজাহান নির্মাণ করেননি? আপনি কি চান যে তাজমহল কে নির্মাণ করেছেন এবং তাজমহলের বয়স কত সে বিষয়ে আমরা সিদ্ধান্ত দিব? আপনি কি নিজের মনগড়া ইতিহাসে আমাদেরকে নিয়ে যেতে চান? আমরা আপনার আবেদনের প্রসঙ্গে আসি। প্রথমত, আপনি চান তাজমহল নিয়ে তথ্যানুসন্ধান কমিটি গঠনের জন্য আমরা হুকুমনামা জারি করি। দ্বিতীয়ত আপনি চান কক্ষগুলোর দরজা খুলতে আমরা হুকুমনামা জারি করি। কথা হচ্ছে, কেবল অধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটলেই হকুমনামা জারি হয়।

আদালত আরও বলেন, তাজমহলের বয়স নির্ধারণ আদালতের কাজ নয়। তথ্য অধিকার আইনে আপনি তথ্য চাইতে পারেন। কিন্তু তথ্য অধিকার আইনের কোথায় বলা আছে যে বিশেষ গবেষণার দাবি জানানো যাবে? এম.এ. করেন, পিএইচডি করেন। গবেষণা করেন। কোনো প্রতিষ্ঠান আপনাকে গবেষণা করতে না দিলে, তথ্য না দিলে তখন আমাদের কাছে আসবেন।

সংবাদ শেয়ার করুন

সতর্ক বার্তা

আমরা নিজস্ব সংবাদ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি। -ইন্দোবাংলা টীম।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৩১ নির্দেশনা

© ইন্দোবাংলা২৪.কম সকল অধিকার সংরক্ষিত ২০২৩।
কারিগরি সহায়তায়: অল আইটি