মঙ্গলবার, ০৫ Jul ২০২২, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

সরকারি জরুরি হটলাইন

সরকারি তথ্য ও সেবা-৩৩৩, জরুরি সেবা-৯৯৯, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে-১০৯, দুদক-১০৬, দুর্যোগের আগাম বার্তা-১০৯০, শিশুর সহায়তায় ফোন-১০৯৮, ভূমির সেবা পেতে...অভিযোগ জানাতে-১৬১২২, ই-জিপি জরুরি হেল্পলাইন-১৬৫৭৫, নৌপরিবহনের হেল্পলাইন-১৬১১৩। তথ্য সুত্র : পিআইডি

বগুড়া গোকুল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান অবরুদ্ধ, মহাসড়ক অবরোধ

ময়না টিভি সংবাদাতাঃ বগুড়া সদর উপজেলার গোকুল ইউনিয়ন পরিষদে সেবা গ্রহনকারী এক ব্যক্তিকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও চড় থাপ্পড় মারার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান সওকাদুল ইসলাম সরকার সবুজকে ইউনিয়ন পরিষদে ঘন্টাব্যাপী অবরুদ্ধ করে রেখেছিলেন বিক্ষুব্ধ জনতা। এছাড়াও এলাকার শত শত নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে চেয়ারম্যান সবুজের বিচারের দাবীতে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। অবরোধের সময় রাস্তার উভয় পার্শ্বে শতশত যানবাহন আটকা পড়ে। প্রায় আধা ঘন্টাব্যাপী এ অরোধের কারনে চরম দূর্ভোগে পড়তে হয় যাত্রী সাধারণদের।
২০ জুন শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে হাইওয়ে পুলিশ ও সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসে। এসময় গোকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সওকাদুল ইসলাম সরকার সবুজ এর অসদাচরণের বিচার ও অপসারণের দাবীতে বিক্ষোভ করতে থাকে। পুলিশের সামনেই বিক্ষুব্ধ জনগণ অবরুদ্ধ চেয়ারম্যানের কক্ষে জুতা স্যান্ডেল নিক্ষেপ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ চেয়ারম্যানের সহযোগী মোমিন নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে। বগুড়া সদর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান বলেন অনাকাঙ্ক্ষিত এমন ঘটনায় অভিযোগ দেয়া হলে আইনত ব্যবস্থা নেয়া হবে এমন
আশ্বাস দিলে বিক্ষুব্ধ জনগণ শান্ত হয়। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
নির্যাতনের শিকার গোকুল সদর গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে শফিকুল ইসলাম রাঙ্গা জানান, গোকুল ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন একটি সমিতির জায়গা তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি। ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক সম্প্রসারণ কাজে ঐ সম্পত্তি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। বগুড়া জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কর্মচারীরা শনিবার গোকুল মৌজার অধিগ্রহনে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তিদের ৮ ধারার নোটিশ দিচ্ছিলেন। রাঙ্গা বিবাদমান ওই জায়গার নোটিশ গ্রহন করায় চেয়ারম্যান তাঁকে অশ্রাব্য ভাষায় গালমন্দ করেন এবং চড় থাপ্পড় মারেন। এসময় চেয়ারম্যানের নির্দেশে তার সহযোগী মোমিন, চেয়ারম্যানের উপস্হিতিতেই রাঙাকে বেধড়ক মারপিট করে। এসময় ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। খবর পেয়ে আশপাশের লোকজন লাঠি-সোটা নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে আসলে চেয়ারম্যান প্রাণ বাঁচাতে পরিষদের নিজ কক্ষে গিয়ে অবস্থান গ্রহন করে।
পরে পুলিশ এসে অবরুদ্ধ চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় মারপিটের শিকার রাঙ্গা বাদী হয়ে পুলিশের হাতে আটক মৃত উজির উদ্দিনের ছেলে মোমিন ও মৃত সোলায়মানের ছেলে সোহেল সহ অজ্ঞাত ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
বগুড়া সদর থানার ওসি জানান, গোকুলের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে, উদ্ভুদ পরিস্হিতি তদন্ত পুর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে মতামত নেয়ার জন্য চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা কর হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিক মাহফুজ মন্ডল কে, দেখে নেয়ার’ হুমকি প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংবাদ শেয়ার করুন

সতর্কবার্তা

আমরা নিজস্ব সংবাদ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে (+880963871280, 01710629562) যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি।

 


করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৩১ নির্দেশনা

© ইন্দোবাংলা২৪.কম সকল অধিকার সংরক্ষিত ২০২২।
কারিগরি সহায়তায়: অল আইটি